~ ভুতুড়ে বাড়ি

~ মোহন লাল ধারা শিক্ষক

~ গল্প

~ তারিখ 18th October, 2016


অমল ও কমল একই ক্লাসে পরে | দুজনে ঘনিষ্ঠ বনধু কালীপূজা উপলক্ষে অমল তার বনধু কে সঙ্গে নিয়ে তার মামারবাড়ি গোবিন্দপুর গ্রামে গিয়েছে | ওই গ্রামের পাশে একটা গভীর জঙ্গল , ওই জঙ্গল এতই গভীর যে দিনের বেলায় সূর্যের আলো প্রবেশ করতে পারে না | দুজনেই দশম শ্রেণী তে পরে | পরের বছর মাধ্যমিক পরীক্ষা দেবে | দুজনেই ভুত কে বিশ্বাস করতো না | মামারবাড়িতে দাদুর কাছে গল্প শুনেছে যে ওই গভীর জঙ্গলে একটা পুরোনো রাজপ্রাসাদ আছে | সেখানে ভুত বাস করে | ওখানে গেলে ভুতের দর্শন মিলবে |

দুজনেই দুপুরে খাবার পর জঙ্গলের উদ্দেশ্যে রওনা দিলো | অমল ও কমল রাজপ্রাসাদের দরজার কাছে আসে দরজায় ধাক্কা দিতে লাগলো | তারা জিজ্ঞেস করলো ভেতরে কেউ আছেন নাকি ? ভেতর থেকে উত্তর এল আমরা অনেকেই আছি |
তোমরা ভেতরে এস | এখানে সুন্দর খাবার ব্যবস্থা আছে | অমল দেখলো যে দরজার কাছে ১০ জোড়া জুতো আছে | তার মানে যারা প্রাসাদের ভেতরে গেছে তারা ফেরত আসে নি | হয় তারা আনন্দে বসবাস করছে | নয় তো তারা মারা গেছে |

তারা সাহসে ভর দিয়ে এগিয়ে গেলো | হঠাৎ ভেতরের দরজা খুলে গেলো | দেখলো রান্নাঘরে সুন্দর খাবার সাজানো আছে |
অমল খুব খেতে পছন্দ করে | তারা দুজনে খাবার ঘরে বসে মনের আনন্দে খাবার খেতে লাগলো | দোতলার একটা ঘর থেকে কান্নার সুর ভেসে এল | একজন করুন স্বরে বললো ছোট বালক অমল বাঁচতে যদি চাও এখনই খাবার না খেয়ে বাড়ির দিকে পালাও | এই কথা শোনা মাত্র অমল ও কমল দুজনেই বাঁচাও বাঁচাও বলে বাড়ির দিকে ছুটলো |



সার্চ করুন বাঙালি কবিদের কবিতা

  
spacebar অথবা tab টিপুন বাংলায় রূপান্তর করতে

  

পোস্ট তারিখ